মোটিভেশনাল স্পিচ – তরুনদের দুর্বলতাকে পুঁজি করে ধোঁকাবাজি ব্যবসা !

0
25

পৃথিবীর ইতিহাসে প্রথম মোটিভেশনাল স্পিচ দিছিলো শয়তান। গ্রহীতা ছিলো এডাম ও ইভ। হাত বাড়াও, তুমি ও পাবে। তারপরে ইতিহাস। পরবর্তীতে খুব বেশী মোটিভেশনের দরকার পড়েনাই মানুষের। হঠাত একদিন একটা মাকড়সা আইসা রবার্ট ব্রুসরে মোটিভেইট করলো। এইটাকে অনেকে মিথ বলে। বানাইন্যা গল্প আর কি। সফল হইলে সেই অনুসারে গল্প বানাইতে হয় মানুষের। বাংলাদেশের প্রতিটা বড়লোকেরই যেমন একটা গরীবী গল্প থাকে, সে খাইতে পারতোনা, অনেক স্ট্রাগল করছে এইধরনের কথাবার্তার পরে এন্ডিং দেয়, “আজকে আমার এই অবস্থানের পিছনে ডট ডট ডট “। প্রত্যেক গরীবের যেমন একটা ধনী পাস্ট থাকে। ইতিহাসের সবচেয়ে গতিশীল সময়ে বসবাস করতেছি আমরা, সোশ্যাল মবিলাইযেশন অনেকেরই এখন দ্রুত হবে। যাইহোক, এইগুলান ছাড়াই চলতেছিলো মানুষের। মাকড়সার পরে আসছে ডেল কারনেগী। বিংশ শতকের প্রথম ভাগের আমেরিকার যে কালচারাল শিফট, তার সাথে তুলনীয় সময় পৃথিবীর ইতিহাসে আর আসেনাই। সিভিল ওয়ার শেষ, রেইল রোড বানানো শেষ, একের পর এক উদ্ভাবক আসতেছে যারা একই সাথে উদ্যোক্তা, ইন্টেলেকচুয়াল প্রোপার্টির সুরক্ষা দিচ্ছে রাস্ট্র…… আমেরিকান ড্রিম পারস্যু করার জন্য মোক্ষম সময় তখন। কর্পোরেট কোচিং, সেলসম্যানশিপ ট্রেইনিং এইগুলারে ইন্সটিটিউশনালাইয করছেন কার্নেগী, জনপ্রিয় করছেন।

সবচেয়ে গুরুতপূর্ণ হইলো, এইগুলার ভোক্তা তৈরি করছেন। মেকি বিনয়, নম্রতা দিয়া তৈরী যে বিক্রেতা সে আমাদের সময়ের নায়ক। ডেল কারনেগী আজকে বাঁইচা থাকলে অবাক হইতেন দেইখা যে, কি কি জিনিষ লাইফ কোচিংয়ের আন্ডারে ঢুকছে। স্পিরিচুয়ালিটি বিক্রি হইতেছে পণ্যের মতন, আপনি চাইলে প্রশান্তি কিনতে পারবেন। বডি বিল্ডিং মানুষ আদিমকাল থেকে করে আসতেছে, কিন্তু এই বডি ফেটিশ একদম নয়া আমদানী। ইতিহাসের যেকোন সময়ের তুলনায় মানুষ নিজেদের শরীরকে বেশী ভালোবাসে এখন। নিজেদের মুখশ্রীকে বেশী ভালোবাসে। হাইপোথেটিক্যালি, আজ থেকে ১৫০ বছর আগে যদি কোনভাবে স্মার্টফোন আবিষ্কৃত হইতো, মানুষ কিন্তু এখনকার মতো সেলফি নিতোনা। তখনকার সময়ে নেয়া সেলফির সংখ্যা মাইনাস এখনকার সময়ে নেয়া সেলফি ইজ ইকুয়াল টু মডার্ন মেলানকলি। আরো খোলাসা কইরা বললে, কিম কারদাশিয়ান সেলিব্রিটি হইতে পারতোনা অন্যসময়ে জন্ম নিলে। আমাদের সবচেয়ে বেশী ব্যাবহৃত ইন্দ্রিয় হচ্ছে এখন চোখ, ক্রমশ চার ইন্দ্রিয়কে ম্রিয়মান করে চোখের ইন্দ্রিয়রাজ হয়ে উঠাটা মডার্নিটির গল্প। কার্নেগি চাচ্চুর পরে ও অবশ্য লাইফ কোচিং আমরা পাইছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here